তিন শ্রেনির নামাজী ব্যক্তির জাহান্নামে যাওয়ার কারণ জেনে নিন

তিন শ্রেণির নামাজী জাহান্নামে যাবে

আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ। সুপ্রিয় বাণী কথার পাঠক বৃন্দ, আশা করি আপনারা সবাই  মহান আল্লাহ তায়ালার অশেষ রহমতে ভালো আছেন। আমিও মহান আল্লাহ তায়ালার অশেষ মেহেরবানীতে আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। আমাদের আজকের আলোচনার বিষয়বস্তু হল যে, জাহান্নামে যাওয়ার কারণ । জাহান্নামে যাবে কারা , তিন শ্রেনির ব্যক্তি নামাজ আদায় করেও জাহান্নামে যাবে । চলুন জেনে নেই, জাহান্নামে যাওয়ার কারণ কি ? অথচ তিন শ্রেনির ব্যক্তিই পাঁচ ওয়াক্ত নামজ আদায় করে।

নামাজ ইসলামের একটি অন্যতম স্তম্ভ। প্রতিদিন প্রত্যেক মুসলমানের জন্য পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করা ফরজ। নামাজ হতে হবে সহিহ শুদ্ধ ভাবে কুরআন ও হাদিসের আলোকে। আমাদের মাঝে আমরা অনেকেই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করে থাকি। কিন্তু এর মধ্যেও অনেকেই জাহান্নামে যাবে। অর্থাৎ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজী হয়েও জাহান্নামে যাওয়ার কারণ কি কি হতে পারে আমাদের জানার দরকার আছে। তিন শ্রেণির লোক আছে যারা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করে, কিন্তু তারা জাহান্নামে যাবে।

১. জাহান্নামে যাওয়ার কারণ সঠিক সময়ে নামাজ আদায় না করা

জাহান্নামে যাওয়ার কারণ এর মধ্যে সঠিক সময়ে নামাজ আদায় না করা একটি কারণ। নামাজের সময় বা ওয়াক্ত হয়ে গেলে আপনাকে জামায়াতের সহিত নামাজ আদায় করে নিতে হবে। আমাদের মধ্যে অনেকে রয়েছে পাঁচ ওয়াক্ত যারা নামাজ আদায় করেন। কিন্তু তারা সঠিক সময়ে নামাজ পড়েন না। তারা বিভিন্ন কাজের অযুহাতে নামাজ আদায়ে গাফলতি করে দেরি করে নামাজ পড়ে।

নামাজের ব্যপারে অনেক হাদিসে সময় মত নামাজ পড়ার তাগিদ দেয়া রয়েছে। অতএব যারা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করে কিন্তু সময় মত নামাজ আদায় করে না। এই শ্রেনির ব্যক্তি জাহান্নামে যাবে কারণ সময় মত নামাজ আদায় না করা।

২. নামাজের বিধি-বিধান না মানা ব্যক্তি জাহান্নামে যাবে

নামাজী বক্তি নামাজ পড়েও জাহান্নামে যাওয়ার অন্যতম কারণ নামাজের বিধি বিধান না মেনে নামাজ আদায় করা। নামাজ দ্বারা আল্লাহর আনুগত্য প্রকাশ করা হয়। নামাজ হবে খুশু খুজুর সাথে। নামাজের বিভিন্ন নিয়ম সম্পর্কে হাদিস রয়েছে। নামাজ আদায়ের অনেক নিয়ম নীতি রয়েছে যেগুলো আমাদের মেনে নামাজ আদায় করতে হবে। এই নীতি না মানলে আমাদের নামাজ কবুল হবে না।

আমাদের মাঝে অনেকেই রয়েছেন যারা দায়সারা ভাবে নামাজ পড়ে। অর্থাৎ তারা প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়লেই যেন বেঁচে যায়। কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা করে না। কিন্তু নামাজের বিধান অনুসরণ না করলে আল্লাহর দরবারে নামাজ কবুল হয় না।

এই শ্রেনির ব্যক্তি প্রতিনিয়ত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করলেও সেই নামাজী ব্যক্তি জাহান্নামে পতিত হবে। কেননা তার কোন নামাজই মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে কবুল হবে না।

৩. জাহান্নামে যাবে কারা – লোক দেখানো নামাজ আদায় করা ব্যক্তি

নামাজী ব্যক্তির জাহান্নামে যাওয়ার আরেকটি কারন হল লোক দেখানো নামাজ। নামাজ পড়া হয় একমাত্র আল্লাহর জন্য। আল্লাহকে সন্তুষ্টির জন্য হবে আমাদের নামাজ ও অন্যান্য যাবতীয় ইবাদত। কিন্তু আপসোস! বর্তমান জামানায় নামাজ নিজের সম্মান বাড়ানোর জন্য পড়া হয়। নামাজ পড়তে যেতে লোকে দেখলে ভাল বলবে। আমাদের সমাজে অনেকে রয়েছেন, যারা লোক দেখানো নামাজ আদায় করে থাকেন। তারা মনে করেন, আমি যদি নামাজ না পড়ি তাহলে, লোকে কি বলবে? কিন্তু তারা ভুলে যায় যে নামাজ হবে একমাত্র আল্লাহর জন্য।

আমরা শুধু আল্লাহতায়ালার দরবারে আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্যই নামাজ আদায় করব। কখনও কে কি বলল, না বলল এসবের জন্য নামাজ আদায় করব না। কিন্তু আমাদের সমাজের অনেকেই রয়েছেন যে তারা লোক দেখানোর জন্য নামাজ আদায় করে থাকেন তারা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য নামাজ আদায় করেন না। লজ্জার ভয়ে তারা নামাজ আদায় করেন। জাহান্নামে যাবে এই শ্রেনির ব্যক্তি যদিও বা তারা নিয়মিত নামাজ আদায় করে।

এই সব হল জাহান্নামে যাওয়ার কারণ । এই তিন শ্রেনির ব্যক্তি যারা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করেও এই সকল কর্মের কারণে জাহান্নামে যাবে ।

আজকে আমরা জানলাম যে, কোন তিন শ্রেনির ব্যক্তি নামাজী হয়েও জাহান্নামে যাবে। আমরা সব সময় খেয়াল রাখবো এই তিন শ্রেনির নামাজী ব্যক্তির মত যেন না হই যারা নামাজী হয়েও জাহান্নামে যাবে। য়ামরা সব সময় চেষ্টা করবো সময় মত নামাজ আদায়ের জন্য। সঠিক নিয়ম নীতি মেনে ও আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য আমাদের নামাজ আদায় করবো।

আপনি আরো পড়তে পারেন , পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের শারিরীক উপকারিতা। 

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More